অনুসন্ধানী রিপোর্টের বৈশিষ্ট্য । রিপোর্ট লেখার ধাপসমূহ

অনুসন্ধানী রিপোর্টের বৈশিষ্ট্য । Characteristics of Investigative Reporting

Advertisement

অনুসন্ধানী রিপোর্টিং অন্যান্য সাধারণ রিপোর্টিং থেকে কিছুটা আলাদা । নিচে অনুসন্ধানী ‍রিপোর্টিং এর বৈশিষ্ট্য সমূহ আলোচনা করা হলো ।

১. জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট

২. ফলাফল ধর্মী

৩. গবেষণা ধর্মী

৪ . তথ্য উন্মোচন

৫ . সময় সাপেক্ষ

৬. ব্যয়বহুল

৭. তথ্যনির্ভর

অনুসন্ধানী রিপোর্টের বৈশিষ্ট্য
অনুসন্ধানী রিপোর্টের বৈশিষ্ট্য

১. জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট

জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে অনুসন্ধানী রিপোর্ট করতে হয় । জনগণকে যেসব তথ্য প্রভাবিত করে সে সব তথ্য নিয়ে এখানে কাজ করা হয় । সরকারের অর্থ কেলেঙ্কারি কিংবা বিদ্রোহী কোন গ্রুপের সাথে গোপণ আঁতাত এসব বিষয় এধরনের রিপোর্টিং এর বিষয় হতে পারে । এ ধরনের রিপোর্টিং এর মাধ্যমে রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক ক্ষমতার শীর্ষ স্থানে অবস্থানকারী ব্যক্তি বা গোষ্ঠীর অপকর্ম , দুর্নীতি কিংবা ভুল ভ্রান্তি প্রকাশ পায় ।সাধারণ মানুষ সচেতন হতে পারে এধরনের রিপোর্টিং এর মাধ্যমে ।

২. ফলাফল ধর্মী

অনুসন্ধানী রিপোর্ট কে ফলাফল ধর্মী হতে হবে । ওয়াটার গেট কেলেঙ্কারির জন্য প্রেসিডেন্ট নিক্সন ক্ষমতা থেকে বিদায় নিতে হয় । বোফর্স কেলেঙ্কারির জন্য পতন হয়েছিল রাজীব গান্ধীর সরকারের ।

৩. গবেষণা ধর্মী

অনুসন্ধানী রিপোর্ট এ তথ্যের সত্যতা নিরূপণের জন্য প্রচুর গবেষণা করতে হয় বা গবেষণার মাধ্যমে অজানা তথ্য বের কর আনা হয় । আর এজন্য টিম ওয়ার্কিং এর ভিত্তিতে অনুসন্ধানী রিপোর্টারকে কাজ করতে হয় ।

Advertisement

৪ . তথ্য উন্মোচন

অনুসন্ধানী রিপোর্টিং হচ্ছে এক ধরনের তথ্য উন্মোচনের প্রক্রিয়া । ইচ্ছাকৃত ভাবে গোপন করা তথ্য বা বা এড়িয়ে যাওয়া তথ্য এখানে বের করে আনার চেষ্ঠা করা হয় ।

৫ . সময় সাপেক্ষ

অনুসন্ধানে রিপোটিং অত্যন্ত সময় সাপেক্ষ । ওয়াটার গেট কেলেঙ্কারির তথ্য বের করতে দুই বছর সময় লেগেছিল । আমাদের দেশের পত্রিকাগুলো সাংবাদিকদের এত দীর্ঘ সময় দেয় না বলেই পত্রিকাতে চাঞ্চল্যকর অনুসন্ধানী রিপোর্ট তেমন একটা দেখা যায়না ।

৬. ব্যয়বহুল

অনুসন্ধানী রিপোর্টিং ব্যয়বহুল । সংবাদ সূত্রকে টাকা দিতে হয় নানা জায়গায় । নানা জায়গায় যেতে হয় , বিভিন্ন তথ্য জোগাড় করতে হয় । এজন্য অনেক অর্থ ব্যয় করতে হয় ।

৭. তথ্যনির্ভর

অন্য রিপোর্ট এর মত অনুসন্ধানী রিপোর্টও তথ্য ছাড়া মূল্যহীন । এখানে মূলত অজ্ঞাত তথ্য জ্ঞাত করতে হয় । রিপোর্টার তথ্য দিয়েই জনস্বার্থ বা রাষ্ট্র স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয় প্রমাণ করবেন ।

আরো জানুন…….অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা কী । What is Investigative Reporting

অনুসন্ধানী রিপোর্ট লেখার ধাপসমূহ

১ . একটি ধারণা ,সামান্য একটু তথ্য কনা থেকেই অনুসন্ধানে রিপোর্টিং এর যাত্রা শুরু হয় । এ ধারণা গোপণ সূত্র বা কাগজপত্র ঘাটাঘাটি বা দৈনন্দিন কাজের মধ্য থেকেই বেরিয়ে আসতে পারে ।

২. একটি বিষয়কে নিয়ে শক্তিশালী ধারণা গড়ে ওঠার পর তার সম্ভাব্যতা যাচাই করা , বিষয়টি তদন্ত করার মত কিনা , রহস্যের উদ্ঘাটন কতটুকু জনস্বার্থ সম্বলিত হবে ইত্যাদি বিষয় বিবেচনা করা ।

৩. সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের পর সিদ্ধান্ত নিবেন রিপোর্টার সামনে এগোবেন কিনা । যদি সামনে এগোনোর সিদ্ধান্ত নেন তবে এখানে তাকে তার সর্বোচ্চ লক্ষ্যটি ঠিক করে নিতে হবে । অর্থাৎ , বিষয়টি নিয়ে তিনি কি করবেন তা স্থির করতে হবে ।

৪. এধাপে রিপোর্টারকে তার কাজের পরিকল্পনা ও ভিত্তি নির্মাণ করতে হবে । তদন্ত করতে গিয়ে কোন কোন কৌশল অবলম্বন করবেন, কোন কোন জায়গা থেকে তথ্য সংগ্রহ করবেন তার সিডিওল ঠিক করতে হবে ।

৫. এ ধাপে রিপোর্টিং সম্পর্কে প্রাথমিক গবেষণা করতে হবে । এক্ষেত্রে তিনটি বিষয় অত্যাবশ্যক । সেগুলি হল – সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে বই পড়া ,বিশেষজ্ঞদের মতামত নেওয়া , প্রত্যক্ষদর্শী বা অভিজ্ঞতা অর্জন কারীদের সাথে কথা বলা

৬. এ পর্যায়ে গবেষণা থেকে প্রাপ্ত তথ্যের চূড়ান্ত মূল্যায়ন করতে হবে । এখানে রিপোর্টার দেখবেন যা কিছু তথ্য তিনি পেয়েছেন তা থেকে অভিযোগ উত্থাপন করলে তা টিকে কিনা ।

৭. সম্পাদকের সাথে কথা বলে সংশ্লিষ্ট বিষয়ের রিপোর্টের একটি খসড়া কপি তৈরি করা এবং তা সম্পাদককে দেখানো ।

৮. সব শেষে চূড়ান্ত প্রতিবেদন তৈরি করার কাজে নেমে পড়া

100% LikesVS
0% Dislikes

Write a Comment

Share It