কমিউনিটি রেডিও নীতিমালা ২০০৮। Community Radio Policy 2008

কমিউনিটি রেডিও নীতিমালা ২০০৮


কমিউনিটি রেডিও হল কোন নির্দিষ্ট জনগোষ্ঠীর উদ্যোগে প্রতিষ্ঠি, পরিচালিত ও তাদের কল্যাণে ব্যবহৃত স্থানীয় সম্প্রচার ব্যব। এ জনগোষ্ঠী কোন সুনির্দিষ্ট এলাকার যেমন – কোন ছোট শহরতলী, গ্রাম, উপজেলা, বা ছোট দ্বীপের হতে পারে । বাংলাদেশে কমিউনিটি রেডিও চালু করার জন্য ১৯৯৮ সাল থেকে বাংলাদেশ এনার্জিওম নেটওয়ার্ক ফর রেডিও কমিউনিকেশন (BNNRC) উদ্যোগ গ্রহণ করে।

Advertisement

২০০৬ সালে সম্প্রচার বিশেষজ্ঞ , এনজিও প্রতিনিধি, দাতা সংস্থা ও উন্নয়ন সহযোগী এবং নাগরিক সমাজের সমন্বয়ে গঠিত সভা শেষে কমিউনিটি রেডিও বিষয়ক ঘোষণা -২০০৬ গৃহীত হয়। এ ঘোষণায় কমিউনিটি রেডিও প্রতিষ্ঠায় সরকারকে দ্রুত প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণের সুপারিশ করা হয়। দীর্ঘ পথ পরিক্রমায় ২০১০ সালের ২২ এপ্রিল বাংলাদেশে এটি বাস্তব রূপ লাভ করে। প্রাথমিক অবস্থায় বাংলাদেশ সারকার ১৪ টি কমিউনিটি রেডি ও কে অনুমোদন দেয় ।

কমিউনিটি রেডিও
কমিউনিটি রেডিও

কমিউনিটি রে ডিও নীতিমালা
কমিউনিটি রেডিও স্থাপন, সম্প্রচার ও পরিচালনার নীতিমালা – ২০০৮ এর আওতায় সমাজের একেবারে তৃণমূল পর্যায়ের বিভিন্ন সম্প্রদায় ও জনগোষ্ঠীর জন্য নিবেদিত বেতার সম্প্রচারের বিষয়ে গুরুত্ব প্রদান করা হয়। এ নীতিমালার ভূমিকায় বলা হয় – প্রান্তিক এ জনগোষ্ঠীর মুখের ভাষায় তাদের অংশগ্রহণ ও ব্যবস্থাপনায় স্থাপিত ও পরিচালিত হতে পারে কমিউনিটি রেডিও স্টেশ। সেখানে তাদের আশা আকাংখার প্রতিফলন ঘটবে। স্থানীয় জনসাধারণের লোকজ জ্ঞান, সম্পদ ও সংস্কৃতি, আধুনিক জ্ঞান ও আধুনিক প্রযুক্তির সমন্বয় ঘটবে

কমিউনিটি রেডিও র মৌলিক নীতিমালায় আরো বলা হয় – আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি ও গ্রহণযোগ্য কমিউনিটি রেডিও র মূলনীতিমালা বাংলাদেশেে অনুসৃত হবে। কোন সংস্থা বা প্রতিষ্ঠান যদি কমিউনিটি রে ডিও পরিচালনা করতে চায় তবে সে সংস্থা বা প্রতিষ্ঠানকে নিম্নেে বর্ণিত নীতিমালা প্রতিপালন করতে হবে


ক. সংস্থা বা প্রতিষ্ঠানকে অবশ্যই অলাভজনক হতে হবে।
খ. সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান বা সংস্থার কমপক্ষে পাঁচ বছর কমিউনিটি পর্যায়ে কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। 
গ. কমিউনিটি রে ডিও স্টেশন কে অবশ্যই সুনির্দিষ্টভাবেকমিউনিটির লোকজনকে সেবা প্রদান করতে হবে।
ঘ. সংশ্লিষ্ট সংস্থা বা প্রতিষ্ঠানের অবশ্যই আইনগত বৈধতা থাকতে হবে। 
ঙ. মূলধারার গণমাধ্যমের সুযোগ এবং সুবিধা বর্ণিত জনগোষ্ঠী কমিউনিটি রেডিও স্থাপনের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার লাভ করবে। 
চ. সম্প্রচার অনুষ্ঠান সূচিতে কমিউনিটি শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও সমাজ, নারীর অধিকার, গ্রামীণ উন্নয়ন, পরিবেশ, আবহাওয়া ও সাংস্কৃতিক বিষয় অন্তর্ভুক্ত থাকতে হবে। এবং এতে করে অবশ্যই জনগোষ্ঠীর সংশ্লিষ্টতা থাকতে হবে।

উল্লেখিত মৌল নীতিমালা অনুসরণ 
করেই লাইসেন্স প্রাপ্তি, পরিচালনা, প্রচারনীতি ইত্যাদি স্থির করা হয়েছে। ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, রাজনৈতিক দল বা তাদের অঙ্গ সংগঠন, দেশি – বিদেশি কোম্পানি বা সম্প্রচার প্রতিষ্ঠান এবং সরকার কর্তৃক নিষিদ্ধ ঘোষিত প্রতিষ্ঠান সমূহ কমিউনিটি রেডিও পরিচালনার অনুমতি পাবে না বলে নীতিমালায় উল্লেখ রয়েছে।

নীতিমালার অন্যান্য শর্তাবলী 


অনুমোদন প্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান বা সংস্থাকে নিশ্চিত করতে হবে যে, সম্প্রচারিত অনুষ্ঠানের মধ্যে এমন কিছুই অন্তর্ভুক্ত হবে না যা –
১. অন্য দেশের সমালোচনা করে বা বাংলাদেশের সঙ্গে অন্য দেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক ক্ষতিগ্রস্ত করে। 
২. প্রকাশ্যে অথবা অপ্রকাশ্যেে যে কোন ধর্মের, সম্প্রদায় অথবা জাতিগোষ্ঠীর প্রতি কটাক্ষ করা হয়। ফলে সম্প্রদায় বা জনগোষ্ঠীর মধ্যে বিদ্বেষ তৈরি হয় এবং সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট হয়। 
৩. দেশের কোন ব্য, দল বা সমাজের কোন অংশকে অপবাদ বা কুৎসা রচনার মধ্য দিয়ে সমালোচনা করে। 
৪. কুসংস্কার ও অন্ধবিশ্বাসে উৎসাহ দেয়
৫. নারী সমাজকে অবহেলা করা 
৬. এলকোহল, মাদক ও ধুমপানে উৎসাহ প্রদান এবং সমর্থন করে।

নীতিমালার অন্যান্য নির্দেশনা
১. কমিউনিটি রে ডিও পরিচালনার মৌলিক উদ্দেশ্য হবে উদ্দিষ্ট জনগোষ্ঠীর সেবা করা এবং তাদেরকে বেতার অনুষ্ঠানে প্রচারে অন্তর্ভুক্ত করা।
২. বাংলাদেশ বেতার যদি স্থানীয় বিষয় সংশ্লিষ্ট কোন অনুষ্ঠান সমপ্রচার করে তবে বিভিন্ন কমিউনিটি রে ডিও স্টেশনের মধ্যে অনুষ্ঠান বিনিময়ের অনুমতি দেওয়া যেতে পারে।
৩. কমিউনিটি রে ডিওর অনুষ্ঠান মালায় সংশ্লিষ্ট জনগোষ্ঠীর স্বার্থ বিশেষভাবে প্রতিফলিত হবে।
৪. কমিউনিটি রে ডিও যেহেতু স্থানীয় মাধ্যম হিসেবে কাজ করে তাই স্থানীয় উন্নয়ন সংবাদ সম্প্রচারে র অনুমতি দেওয়া হবে। তবে যে কোন ধরনের রাজনৈতিক বিষয় সম্প্রচার,, নির্বাচনী প্রচার ও বিজ্ঞাপন কঠোরভাবে নিষিদ্ধ করা হবে।
৫. বিজ্ঞাপন উন্নয়ন সেবা সংশ্লিষ্ট হতে হবে এবং নির্দিষ্ট ক্ষেত্রে সীমাবদ্ধ থাকতে হবে।

50% LikesVS
50% Dislikes

Write a Comment

Share It