প্রাযুক্তিক নির্ণায়ক তত্ত্ব । মার্শাল ম্যাকলুহান

প্রাযুক্তিক নির্ণায়ক তত্ত্ব মার্শাল ম্যাকলুহান

মার্শাল ম্যাকলুহান সংবাদপত্রের চেয়ে ইলেকট্রিনিক মিডিয়াকে অধিকতর কার্যকর মনে করতেন । তিনি ছিলেন প্রযুক্তিগত মতবাদের সমর্থক । তিনি যোগাযোগের ক্ষেত্রে বার্তার চেয়ে প্রযুক্তিকে বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন । তিনি তাঁর প্রাযুক্তিক নির্ণায়ক তত্ত্বে বলেন , “বাহনই বার্তা ” । নিম্নে তাঁর এ তত্ত্ব সম্পর্কে আলোচনা করা হলো

Advertisement

প্রযুক্তি নির্ধারণ তত্ত্ব

এই তত্ত্বের প্রবক্তা হলেন মার্শাল ম্যাকলুহান । মার্শাল ম্যাকলুহান ১৯১১ সালের ২১ জুলাই কানাডায় জন্মগ্রহণ করেন । প্রকৌশল নিয়ে তিনি লেখাপড়া শুরু করেন । সাহিত্যের প্রতি আগ্রহের ফলে পরবর্তীতে তিনি ইংরেজি সাহিত্যে ম্যানিটোরা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অনার্স ও মাস্টার্স ডিগ্রী লাভ করেন । ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি ডক্টরেট ডিগ্রি লাভ করেন । তিনি টরেন্টো বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করলেও যোগাযোগের প্রতি তার আগ্রহের কমতি ছিল না । তিনি অনেকগুলো বই লেখেন এর মধ্যে তাঁর অন্যতম দুইটি গবেষণা কর্ম হল Gutenberg Galaxy ও Understanding Media . এখানে তিনি মানব ইন্দ্রিয়ের ওপর মিডিয়ার প্রভাবকে দেখিয়েছেন । ১৯৮১ সালের ৩১ ডিসেম্বর তিনি মৃত্যুবরণ করেন ।

তিনি তাঁর Gutenberg Galaxy বইতে দেখিয়েছেন যে নতুন মিডিয়ার আগমনের ফলে সংস্কৃতিতে কী পরিবর্তন এসেছে ।কথ্য যোগাযোগের স্থলে মুদ্রণ মাধ্যমের আগমন সমাজের কাঠামো বদলে দিয়েছে । আন্তঃব্যক্তিক মিথস্ক্রিয়া পূর্বের চেয়ে হ্রাস পেয়েছে। সামাজিক বন্ধনগুলো নড়বড়ে হয়ে গেছে এবং পূর্বের সঙ্ঘবদ্ধ সমাজের পরিবর্তে ব্যক্তিবাদে আত্মকেন্দ্রিক সমাজ ব্যবস্থার উদ্ভব ঘটেছে । ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের পরিবর্তে রাষ্ট্রীয় প্রভাব জোড়ালো হয়েছে ।

ম্যাকলুহান তাঁর Understanding Media বইতে জন্মদেন ”মাধ্যমই বার্তা” বাক্যটির । এখানে তিনি বলেন, বার্তা নয় মূলত মিডিয়া বা মাধ্যমের গঠনই নির্ধারণ করে মানব মিথস্ক্রিয়া ও তার আচরণ । এখানে তিনি মাধ্যমের আধেয় এর পরিবর্তে প্রযুক্তিকে বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন । এই দুই পক্ষের যুক্তি দেখাতে গিয়ে তিনি উষ্ণ মাধ্যম ও শীতল মাধ্যম এ দু’ধরনের মাধ্যমের আশ্রয় নিয়েছেন

প্রাযুক্তিক নির্ণায়ক তত্ত্ব
প্রাযুক্তিক নির্ণায়ক তত্ত্ব

প্রাযুক্তিক নির্ণায়ক তত্ত্বের বিভিন্ন দিক

1 . সভ্যতার বিভিন্ন ধাপ Ages of Civilization

ম্যাকলুহান মানুষের যোগাযোগের উপর ভিত্তি করে মানুষের অস্তিত্বকে তিনটি যুগে ভাগ করেছেন । যথা-

১ক. নিরক্ষর বা গোষ্ঠী যুগ

খ. গুটেনবার্গ বা শিক্ষার যুগ

গ. ইলেকট্রনিক যুগ

ক. নিরক্ষর বা গোষ্ঠী যুগ

এ যুগে মানুষ গোষ্ঠীবদ্ধ হয়ে বাস করতো এবং বিভিন্ন অঙ্গভঙ্গির সাহায্যে যোগাযোগ করত । তখন মানুষের মধ্যে সম্পর্ক সৌহাদ্যপূর্ণ । এ যুগে মানুষ গ্রামে বসবাস করত । তখন শব্দ ও দৃশ্যের মাধ্যমে যোগাযোগ হত । সিদ্ধান্ত গ্রহণ ছিল তাৎক্ষণিক ।

Advertisement

খ . গুটেনবার্গ যুগ

গুটেনবার্গ এর মুদ্রণ যন্ত্র আবিষ্কার ছিল এক অনবদ্য সৃষ্টি । এই যুগে টাইপ বা মুদ্রণ যন্ত্রের আবিষ্কারের ফলে দুটি কারণে মানুষের অস্তিত্বের পরিবর্তন হয়ে যায় । যথা –

  1. Type brought sequential thought
  2. Individualism

মূলত তখন থেকেই মানুষ প্রযুক্তির কাছাকাছি আসা শুরু করে । এর ফলে মানুষ নিজের মতামতকে অন্যের কাছে শেয়ার করতে শুরু করে । মানুষের লেখা এবং চিন্তা বই আকারে বের হতেই শুরু করল । এর ফলে দূরবর্তী যোগাযোগ সহজ হয়ে গেল । এই যুগে মানুষ হয়ে পড়লো গতিশীল এবং ব্যক্তি স্বাতন্ত্রিক । এর ফলে শিল্প যুগের সূচনা হয় নতুন জাতীয়তাবোধের জন্ম হয় ।

গ. ইলেকট্রনিক যুগ

ম্যাকলুহানের সভ্যতার তৃতীয় ধাপ হচ্ছে ইলেকট্রনিক যুগ । এতে টেলিগ্রাফের মাধ্যমে যোগাযোগ এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণ হয় তাৎক্ষণিক এবং টেলিফোন দ্বারা দ্বিমুখী যোগাযোগ বেড়ে যায় । এরপর রেডিও এবং টিভির পর্দা জন্ম দেয় জন্ম নতুন যুগের । মানুষ বিশ্বগ্রামে বসবাস করছে যাকে ম্যাকলুহান বলেছেন গ্লোবাল ভিলেজ । এই যুগে প্রবেশের মধ্য দিয়ে মানুষ অলিম্পিক এবং দুর্যোগের চিত্র দেখতে পাচ্ছে ।

আরো জানুন…………নীরবতার কুন্ডলী তত্ত্ব । Spiral of Silence Theory

২. চেতনার সম্প্রসারণ Media as extension of Sense

ম্যাকলুহানের মতে মিডিয়া হলো চেতনার সম্প্রসারণ । আলো হলো একটি মাধ্যম যা আমাদের অন্ধকারে পথ দেখায় । গাড়ি হল পায়ে হাঁটার সম্প্রসারণ । কাপড় হলো আমাদের চামড়ার সম্প্রসারণ । ফিল্ম এবং টিভি হল আমাদের চোখ ও কানের সম্প্রসারণ । কম্পিউটার হল আমাদের কেন্দ্রীয় নার্ভস্ ব্যবস্থা সম্প্রসারণ ।

ম্যাকলুহান বলেন, মিডিয়া হলো উৎস বা উপায় । এটি হল বার্তা আদান-প্রদানের একটি পদ্ধতি কিন্তু এটি নিজেই বার্তা গ্রহণ করে । প্রযুক্তিগত মিডিয়া প্রাকৃতিক সম্পদ যেমন- কয়লা, গ্যাস ইত্যাদির মত । ম্যাকলুহান বলেন, মানবিক ঘটনাবলীর সাথে মাধ্যম ও প্রযুক্তি বার্তার মাধ্যমে আমাদের পরিচয় ঘটিয়ে দেয় ।

৩. উষ্ণ মাধ্যম এবং শীতল মাধ্যম Hot and Cool Medium

যে মাধ্যমে ইন্দ্রিয়ের ব্যবহার কম কিন্তু সে তুলনায় তথ্যের পরিমাণ বেশি, তা হলো হট মিডিয়া বা উষ্ণ মাধ্যম । পুস্তক , পত্রিকা এবং ম্যাগাজিনকে মার্শাল ম্যাকলুহান হট মিডিয়া বলেছেন । কেননা এগুলো ব্যবহারের ক্ষেত্রে উচ্চমাত্রার চিন্তাশক্তির প্রয়োজন হয় ।

রেডিও হল হট মিডিয়া । কেননা এখানে আমাদের ইন্দ্রিয়ের অংশগ্রহণ কম কিন্তু তথ্যের পরিমাণ বেশি । এখানে আমাদের মাত্র একটি ইন্দ্রিয় কান ব্যবহার হয় । রেডিও শুনতে শুনতে আমরা বিভিন্ন কাজ করতে পারি । এক্ষেত্রে শুধু মনোযোগটা বেশি । ম্যাকলুহান চলচ্চিত্রকে হট মিডিয়া বলেছেন । এখানে তথ্যের পরিমাণ বেশি । একটু অমনোযোগী হলেই তথ্য বাদ পড়ে যেতে পারে ।

অপরদিকে যে মাধ্যমে আমাদের ইন্দ্রিয়ের ব্যবহার বেশি এবং সে পরিমাণে ইন্দ্রিয়কে সজাগ থাকতে হয় । কিন্তু সে তুলনায় তথ্যের পরিমাণ কম, তা হল হল কুল মিডিয়া বা শীতল মাধ্যম

টেলিভিশন হল একটি শীতল মাধ্যম । কারণ এখানে শ্রবণ-দর্শন দুটোরই প্রয়োজন পড়ে । অর্থাৎ ইন্দ্রিয়ের ব্যবহার বেশি তবে তথ্যের পরিমাণ তুলনামূলক কম । অথ্যাৎ,

Hot Media=Low Participation + High Definition

Cool Media= High Participation + Low Definition

4. বাহনই বার্তা Medium is the Message

মার্শাল ম্যাকলুহান এর প্রাযুক্তিগত নির্ণায়ক তত্ত্ব ”মাধ্যমেই বার্তা”ধারণাটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ । বাহন নিজেই বার্তা এই উক্তির মধ্য দিয়ে মার্শাল ম্যাকলুহান গনমাধ্যমের শক্তিশালী প্রভাবের বিষয়টি তুলে ধরেন ।

ম্যাকলুহান এর মতে, প্রযুক্তির উন্নয়নের সাথে সাথে যে মাধ্যমগুলো এসেছে তার প্রভাব অনেক বেশি । বার্তাটা আস্তে আস্তে গৌণ হয়ে যাচ্ছে , মাধ্যম টাই মুখ্য হয়ে উঠেছে ।

যদি মিডিয়ার এ ধারণাকে আক্ষরিক ভাবে নেয়া হয় তাহলে মাধ্যম হিসেবে পরিচ্ছদ করণের জটিলতা যা মানুষের ত্বকের সম্প্রসারিত রূপ তা সমাজের যে পরিবর্তন আনে তা অবশ্যই বিবেচনার দাবি রাখে ।

এটা নিঃসন্দেহে বলা চলে, রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা মানুষের যাতায়াতের ক্ষেত্রে একটি বিশাল মহাদেশে বসবাসের ক্ষেত্রে এবং খাদ্য ও পণ্যদ্রব্য পরিবহনে একটি গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন এনেছে ।

ম্যাকলুহান বলেন, যে বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ তা হল আমরা চিন্তা করতে পারি কোন একক বার্তা বা অনেকগুলো বার্তা যেগুলা আজ পর্যন্ত টিভিতে প্রচারিত হয়েছে তার প্রভাবটা আমাদের দৈনন্দিন জীবনে টিভি প্রভাবের চাইতেও বেশি ।

ম্যাকলুহান বলেন, আমি বলছি না যে বার্তাগুলি গুরুত্বপূর্ণ নয় । তবে বার্তা সহযোগী । কিন্তু ম্যাকলুহানের এ ধারণাকে গবেষকরা পুরোপুরি সঠিক বলেন নি । কেননা, তিনি কেবল প্রযুক্তির কথাই বলেছেন কিন্তু মানুষের শিক্ষা, আদর্শও যে প্রভাব ফেলে সেটা বলেনি

100% LikesVS
0% Dislikes

Write a Comment

Share It